পরীক্ষা মূলক আপডেট
সর্বশেষ আপডেট:
যেসব কারণে রিজিকের বরকত কমে যায় উত্তর আমেরিকান অঞ্চলের বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের সময়সূচি ওসমানীর ল্যাবে করোনা টেস্ট বন্ধ, বিদেশগামী যাত্রীরা বিপাকে যুক্তরাষ্ট্রে সুগম হলো ৪০ সহস্রাধিক বাংলাদেশির নাগরিকত্ব লাভের পথ আমি বিয়ে করব না: অভিনেত্রী সুনেরাহ গোপীবাগে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু ফের দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় দ্বিতীয় ঢাকা, বায়ুমান খুবই অস্বাস্থ্যকর ভাস্কর্য বিতর্কের বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী নিজেই দেখছেন : ওবায়দুল কাদের ১০ জেলায় অ্যান্টিজেন টেস্ট উদ্বোধন করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী বিজিবিকে আরও শক্তিশালী করতে সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

সাদা বাড়ির দরজায় বাইডেন, ঢুকতে দিতে নারাজ ‘রাগি’ ডন!

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেটের সময়: শনিবার, নভেম্বর ৭, ২০২০
  • 24 পাঠক
সাদা বাড়ির দরজায় বাইডেন, ঢুকতে দিতে নারাজ 'রাগি' ডন!
সাদা বাড়ির দরজায় বাইডেন, ঢুকতে দিতে নারাজ 'রাগি' ডন!

বাইডেন নাকি ট্রাম্প? কার দখলে হোয়াইট হাউস? ৪৮ ঘণ্টা পেরিয়ে এসেও জবাব অধরা। গণনা যখন পঞ্চম দিনে পড়ল, তখনও চলছে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। সর্বশেষ পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, এখনও পর্যন্ত পেনসিলভ্যানিয়ায় ২৮,৮৭৭ ভোট পেয়ে এগিয়ে রয়েছেন জো বাইডেন।

আইনি বাধাকে তোয়াক্কা না করেই বাইডেন জোর গলায় দাবি করেছেন, প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন তিনিই। প্রেসিডেন্ট পদ গ্রহণ করার পর তিনি কোন কোন কাজকে বেশি অগ্রাধিকার দেবেন, সে ব্যাপারে একটি ঘোষণাও করেছেন আত্মবিশ্বাসী বাইডেন।

বিশ্বের সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত দেশ, আমেরিকায় করোনা পরিস্থিতি সামাল দেয়াকেই তিনি তালিকার প্রথমে রেখেছেন। পাশাপাশি কঠিন পরিস্থিতিতে অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে, বর্ণ-বৈষম্য দূর করতে তিনি বেশি জোর দেবেন বলেও জানান।
অন্যদিকে বাইডেনের জয় আসন্ন দেখে ডোনাল্ড ট্রাম্প অভিযোগ করেছেন যে রাজ্যে তিনি এগিয়ে রয়েছেন, সেখানে কারচুপির কারণে রহস্যজনকভাবে পিছিয়ে পডেছেন। ফলে আবারও আইনি পদক্ষেপ নিয়ে হোয়াইট হাউস আগলে রাখার শেষ চেষ্টা করে চলেছেন ট্রাম্প।

অন্যদিকে, আটলান্টিকের ও পার থেকে কটাক্ষ ধেয়ে এলো ট্রাম্পের দিকে। তবে কোনও পুরোদস্তুর রাজনৈতিক নেতা নন, রিপাবলিকানদের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীকে কটাক্ষ করলেন গ্রেটা থুনবার্গ। ট্রাম্পের সাম্প্রতিক কীর্তিকলাপ দেখে টুইটারে গ্রেটার ব্যঙ্গোক্তি, ‘চিল, ডোনাল্ড চিল!’ গত বছর গ্রেটাকে হুবহু এক ভাবে বিদ্রুপ করেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সুযোগ বুঝে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তারই পাল্টা গ্রেটার।

অ্যাডভান্টেজ বাইডেন হয়ে থাকলেও, ডেমোক্র্যাট প্রার্থী এবং তার জয়ের মধ্যে প্রাচীর হয়ে দাঁড়িয়ে আছে ৬টি সুইং স্টেট। হোয়াইট হাউস দখলের আসল লড়াই এখন সেখানেই চলছে। বিশেষ করে জর্জিয়া বা পেনসিলভ্যানিয়ার মতো স্টেট, যেখানে জয়-পরাজয় কার্যত সুতোর ওপর ঝুলছে।

জোরদার লড়াই চলছে নেভাডাতেও। অ্যারিজোনা ও জর্জিয়াতেও এগিয়ে ডেমোক্র্যাটরা। নেভাডায় ২০,১৩৭ ভোটে এগিয়ে বাইডেন। অ্যারিজোনাতেও তিনি লিড নিয়েছেন ৪৩,৭৭৯ ভোটে। জর্জিয়াতেও ১,১৫৩ ভোটে এগিয়ে তিনি এই চার রাজ্যের একটিতে জয় পেলেই ম্যাজিক ফিগার ২৭০ ছুঁয়ে ফেলবেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী। তবে শেষ রাতে ওস্তাদের মার দিয়ে জয় ছিনিয়ে নিতে পারেন ট্রাম্পও। তবে তার সম্ভাবনা ক্রমশই কমছে। ঘোষিত রাজ্যগুলোর নিরিখে এখন ফল বাইডেন ২৬৪, ট্রাম্প ২১৪।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ঘিরে এই মুহূর্তে চরম উত্তেজনা চলছে। শেষ ছয়টি অঙ্গরাজ্যে ভোটগণনা শেষ হওয়া বাকি হলেও হিসাব নিকাশের পালা শেষের পথে। আলাস্কা ও নর্থ ক্যারোলাইনায় ট্রাম্প এগিয়ে থাকলে সাদা বাড়ির লড়াই অনেকটাই এগিয়ে বাইডেন।

ওয়েস্ট উইংয়ের কুর্সি যে ট্রাম্পের থেকে ক্রমেই দূরে সরে যাচ্ছে, তার আরও বড় প্রমাণ গত কয়েক দিনে সিক্রেট সার্ভিসের গতিবিধি। প্রেসিডেন্টের নিরাপত্তার দায়িত্ব থাকে ক্ষিপ্র এই বাহিনীর হাতে। বৃহস্পতিবার থেকেই বাইডেনের নিরাপত্তা বাড়িয়ে দিয়েছে তারা।

বাইডেন বা ট্রাম্প, ক্ষমতায় যেই আসুন না কেন, করোনার প্রকোপে বিধ্বস্ত মার্কিন অর্থনীতিকে সামলানো বড়সড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াবে তার কাছে। আমেরিকায় মন্দা চরমে। চাকরির বাজারের অবস্থাও নাজুক। করোনায় এমনিতেই মার্কিন ক্রেতাদের ক্রয়-ক্ষমতা অনেকটা কমেছে। তাই অর্থনীতি চাঙা না-হলে ক্রেতাদের ক্রয়-ক্ষমতা বাড়বে না। এর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে বাড়ির দাম। ফলে তীব্র সমস্যায় পড়েছেন বাড়ির সম্ভাব্য ক্রেতা এবং ভাড়াটেরা। এর উপর রয়েছে করোনার প্রকোপ।

গত সপ্তাহেও আমেরিকায় ৬০০০ জনের মৃত্যু হয়েছে কোভিডে। যে দিন গণনা নিয়ে যুদ্ধ রাতভর চলেছে, সেদিনও দেশে লক্ষাধিক মানুষ কোভিড পজিটিভ হয়েছেন। এই অবস্থায় দাবি উঠেছে, ইউরোপের অন্য দেশগুলোর মতো আমেরিকাতেও ফের লকডাউন করা হোক। তাই কাঁটা বিছানো পথই অপেক্ষা করছে হবু মার্কিন প্রেসিডেন্টের জন্য।

বাইডেন অবশ্য এরই মধ্যে এক বিরল নজির গড়ে ফেলেছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ইতিহাসে সর্বকালের সবচেয়ে বেশি ‘পপুলার ভোট’ তার দখলে। আগে এই রেকর্ড ছিল বারাক ওবামার। ২০০৮ সালে ওবামা পেয়েছিলেন ৬ কোটি ৯০ লাখের কিছু বেশি ভোট। বাইডেন ইতিমধ্যেই মোট ৭ কোটির অনেক বেশি ভোট দখল করেছেন। এখনও গণনা বাকি। ট্রাম্পও অবশ্য এবার আগের চেয়ে বেশি ভোট পয়েছেন। তিনিও ওবামার রেকর্ড ভাঙার কাছাকাছি। এখনও পর্যন্ত যা খবর, তাতে প্রেসিডেন্ট পেয়েছেন ৬ কোটি ৭৩ লাখের বেশি ভোট।

মার্কিন ভোটের ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে, বাইডেন এখনও পর্যন্ত জিতেছেন উইসকনসিন, মিশিগান, নিউ মেক্সিকো, নিউ হ্যাম্পশায়ার, নিউইয়র্ক, ম্যাসাচুসেটস, নিউজার্সি, মেরিল্যান্ড, ভারমন্ট, কানেক্টিকাট, ডেলাওয়ার ও কলোরাডোতে। হাওয়াই, ওয়াশিংটন, ক্যালিফোর্নিয়া এবং ইলিনয়ের মতো রাজ্যেও জয় পেয়েছে ডেমোক্র্যাটরা। প্রতিপক্ষ রিপাবলিকানরা জিতেছেন সাউথ ক্যারোলাইনা, আলাবামা, নর্থ ডাকোটা, আরকানসা, টেনিসি, ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া, ওকলাহোমা, কেন্টাকি ও ইন্ডিয়ানাতে। আইওয়ার ৩টি ইলেক্টরাল ভোটও গেছে ট্রাম্পের পক্ষে। সূত্র: এই সময়

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *