Live24.com.bd মঠবাড়িয়ায় যুবলীগ সভাপতি আহত, ৬৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা॥ গ্রেফতার-৯ - Live24.com.bd

মঠবাড়িয়ায় যুবলীগ সভাপতি আহত, ৬৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা॥ গ্রেফতার-৯


rajibm250 ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২১, ১২:৩৬ অপরাহ্ণ
মঠবাড়িয়ায় যুবলীগ সভাপতি আহত, ৬৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা॥ গ্রেফতার-৯

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় উপজেলা যুবলীগ সভাপতি আবু হানিফ খানকে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি শরিফুল ইসলাম রাজু ও সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মর্তুজাসহ ৬৩ জনকে আসামী করে মঠবাড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক নজরুল সোহেল বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেছেন।

হামলার ঘটনার পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৯ জনকে গ্রেফতার করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ রাখতে মঠবাড়িয়ায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
এদিকে, যুবলীগ সভাপতিকে কুপিয়ে আহত করার প্রতিবাদে আজ মঙ্গলবার দিনভর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে প্রতিবাদ সমাবেশ ও প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছে উপজেলা যুবলীগ।

দলীয় কোন্দলের জের ধরে সোমবার সন্ধ্যায় উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আবু হানিফ খানকে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। যুবলীগ কার্যালয়ের সামনে একটি প্রতিবাদ সভা চলাকালে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পৌরসভার মেয়র রফিউদ্দিন আহম্মেদ ফেরদৌস এবং সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফুর রহমান সমর্থিত উপজেলা ছাত্রলীগের একটি গ্রুপ। হামলায় রানা মাল নামে এক স্বেচ্ছাসেবক লীগ কর্মীও আহত হয়েছে। এসময় হামলাকারীরা উপজেলা যুবলীগ অফিস ভাংচুর করে। আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাতেই উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

থানা সূত্রে জানা গেছে, গত রোববার রাতে স্বেচ্ছাসেবক লীগ এক নেতাকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করার ঘটনায় ছাত্রলীগের ১৭ নেতা-কর্মীর নামে থানায় একটি মামলা হলে পুলিশ একজনকে গ্রেফতার করে। এ নিয়ে দুই গ্রুপ সোমবার বিকেলে পাল্টা-পাল্টি প্রতিবাদ সমাবেশ করে।

মঠবাড়িয়া থানার ওসি মাসুদুজ্জামান জানান, দলীয় অভ্যন্তরীন কোন্দলের জের ধরে এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় উপজেলা যুবলীগ সভাপতিসহ দুইজন আহত হয়েছে। এ ঘটনায় ৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পৌর শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি বর্তমানে নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

উল্লেখ্য, মঠবাড়িয়া উপজেলায় উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের মধ্যে অভ্যন্তরীন কোন্দল বিরাজ করছে। উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র রফিউদ্দিন আহম্মেদ ফেরদৌস, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফুর রহমান সমর্থিত গ্রুপ এবং উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক সেলিম মাতুব্বর সমর্থিত গ্রুপের মধ্যে কোন্দল রয়েছে। মঠবাড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে ঘিরে এ কোন্দল আরও জোড়ালো হয়েছে। বিগত দিনে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র রফিউদ্দিন আহম্মেদ ফেরদৌস এবং উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক সেলিম মাতুব্বর একই গ্রুপে ছিলেন। এদের সাথে বিরোধ ছিল সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফুর রহমানের সাথে। তবে উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে ঘিরে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র রফিউদ্দিন আহম্মেদ ফেরদৌস এবং উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক সেলিম মাতুব্বরের মধ্যে বিরোধের সৃষ্টি হয়। ফলে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফুর রহমানের সাথে পূর্বেকার বিরোধ মিটিয়ে তার সাথে মিলে যান পৌর মেয়র রফিউদ্দিন আহম্মেদ ফেরদৌস। তৈরী হয় নতুন দুটি গ্রুপ।

এদিকে, উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের মধ্যেকার কোন্দল ও বিরোধের জের ধরে উপজেলা যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগসহ বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের মধ্যে কোন্দল ও বিরোধ দেখা দেয়। আর এ কারণে মঠবাড়িয়ায় নিজ দলীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে একের পর সহিংস ঘটনা ঘটে চলছে।-পিরোজপুর কন্ঠ