Dhaka 6:48 am, Thursday, 18 April 2024

আলজাজিরার প্রতিবেদনটি অসৎ উদ্দেশ্যে করা হয়েছে : আরো যা বললেন সেনাপ্রধান

  • Reporter Name
  • Update Time : 08:02:25 am, Tuesday, 16 February 2021
  • 180 Time View

এনবি নিউজ : মঙ্গলবার রাজধানীর তেজগাঁওয়ে আর্মি এভিয়েশন গ্রুপের এক অনুষ্ঠানে সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন,‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ শিরোনামে যে প্রতিবেদনটি প্রচার করেছে আলজাজিরা সেটি সম্পূর্ণ ‘অসৎ উদ্দেশ্যে’ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনটি সম্পর্কে সেনাপ্রধান বলেন, যা কিছু আপনারা শুনেছেন, সেগুলোর কোনো প্রমাণ নেই– এগুলো হয়তো বিভিন্ন জায়গা থেকে তারা কাটপিস করেছে। অন্যান্য জিনিস সন্নিবেশিত করে তারা এগুলো করতেই পারবে, কিন্তু তাদের উদ্দেশ্য হাসিল হবে না।

সেনাপ্রধানের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ওই প্রতিবেদনটিতে উল্লেক্ষ প্রশ্নগুলোর বিষয়ে জানতে চাইলে জেনারেল আজিজ প্রশ্নকারী সাংবাদিকের উদ্দেশ্যে বলেন, আমি আপনাকে প্রশ্ন করি– আপনার বিরুদ্ধে মামলা আছে, সাজা আছে;  কিন্তু আপনি যদি গতকাল সাজা থেকে অব্যাহতি পেয়ে থাকেন, আপনার বিরুদ্ধে আর যদি কোনো মামলা রানিং না থাকে, আপনাকে কি ফিউজিটিভ (পলাতক) বলা যাবে আজকে? আপনাকে কি বলা যাবে আপনি সাজাপ্রাপ্ত? কারণ যখন আপনি অব্যাহতি পেয়ে যান কোনো একটি চার্জ থেকে, পরের দিন থেকে আপনি একটা যে কোনো মুক্ত নাগরিকের মতো।

তিনি বলেন, আমার ভাইদের সম্পর্কে যে অপপ্রচারগুলো এসেছে, সেটির স্পষ্ট ব্যাখ্যা দেওয়া আছে এবং খুব শিগগির আমার পরিবারের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে একটা সংবাদ সম্মেলন করে সব কিছু জানানো হবে।

সেনাপ্রধান আজিজ আরও বলেন, আমি সেনাপ্রধান হিসেবে সেনাবাহিনীর ভাবমূর্তি, আমার অবস্থান, আমার দায়িত্ব সম্পর্কে সম্পূর্ণ সচেতন। কী করলে সেনাবাহিনীর ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন  হতে পারে, কী করলে আমার যে দায়িত্ববোধ আমাকে যে দায়িত্বটা দেওয়া হয়েছে, সেটি খর্ব হতে পারে, সে ব্যাপারে আমি সম্পূর্ণ ওয়াকিবহাল।

ভাইয়ের সঙ্গে মালয়েশিয়ায় সাক্ষাৎ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তখন তার নামে কোনো মামলা ছিল না। যে একটা ষড়যন্ত্রমূলক মামলা ছিল, সেটি থেকে অলরেডি অব্যাহতিপ্রাপ্ত ছিল। সে অব্যাহতি মার্চ মাসে হয়েছিল আর আমি এপ্রিল মাসে গিয়েছিলাম। এখানে আলজাজিরা যে স্টেটমেন্ট দিয়েছে, সেটি সম্পূর্ণ অসৎ উদ্দেশ্যে দিয়েছে। কারণ সেদিন আমার ভাইয়ের বিরুদ্ধে না কোনো সাজা ছিল, না তার বিরুদ্ধে

কোনো মামলা ছিল।  তার আগে তাদের বিরুদ্ধে যে মামলা ছিল, তা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছিল।

তার ভ্রমণের মুহুর্তে আলজাজিরা কীভাবে চিত্র ধারণ করল- এ বিষয়ে  জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমি সেনাপ্রধান হিসেবে মনে করি, যখন অফিসিয়াল ক্যাপাসিটিতে কোথাও থাকব, তখন আমার নিরাপত্তা অফিসিয়ালি করা হয়ে থাকে। যেখানে যাই হোস্ট কান্ট্রি করে থাকে এবং সেখানে আমার অতিরিক্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করার প্রয়োজন আছে বলে মনে করি।

এ বিষয়ে তিনি আরও বলেন, কিন্তু যখন আমি কোথাও ব্যক্তিগত সফরে থাকি, হয়তো আসার সময় ট্রানজিটে কোনো আত্মীয়স্বজনের কাছে যাই, সে সময় অফিসিয়াল কোনো প্রটোকল ব্যবহার করা কখনও সমীচীন মনে করি না। আমি মনে করি সেটি অপচয় এবং সেটি আমার জন্য উচিত নয়। সে ক্ষেত্রে সেই দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে কেউ যদি কিছু করে থাকে সেটি তাদের অসৎ উদ্দেশ্য।’

ঐ প্রতিবেদন তৈরিতে বাংলাদেশের যারা যুক্ত ছিলেন, তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে জেনারেল আজিজ বলেন, সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে তেমন কিছু হয়তো করার থাকবে না তাদের বিরুদ্ধে। আমি নিশ্চিত, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে যারা আছেন বা সংস্থায় যারা আছেন, তারা হয়তো তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন।

এ টি

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

আলজাজিরার প্রতিবেদনটি অসৎ উদ্দেশ্যে করা হয়েছে : আরো যা বললেন সেনাপ্রধান

Update Time : 08:02:25 am, Tuesday, 16 February 2021

এনবি নিউজ : মঙ্গলবার রাজধানীর তেজগাঁওয়ে আর্মি এভিয়েশন গ্রুপের এক অনুষ্ঠানে সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন,‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ শিরোনামে যে প্রতিবেদনটি প্রচার করেছে আলজাজিরা সেটি সম্পূর্ণ ‘অসৎ উদ্দেশ্যে’ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনটি সম্পর্কে সেনাপ্রধান বলেন, যা কিছু আপনারা শুনেছেন, সেগুলোর কোনো প্রমাণ নেই– এগুলো হয়তো বিভিন্ন জায়গা থেকে তারা কাটপিস করেছে। অন্যান্য জিনিস সন্নিবেশিত করে তারা এগুলো করতেই পারবে, কিন্তু তাদের উদ্দেশ্য হাসিল হবে না।

সেনাপ্রধানের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ওই প্রতিবেদনটিতে উল্লেক্ষ প্রশ্নগুলোর বিষয়ে জানতে চাইলে জেনারেল আজিজ প্রশ্নকারী সাংবাদিকের উদ্দেশ্যে বলেন, আমি আপনাকে প্রশ্ন করি– আপনার বিরুদ্ধে মামলা আছে, সাজা আছে;  কিন্তু আপনি যদি গতকাল সাজা থেকে অব্যাহতি পেয়ে থাকেন, আপনার বিরুদ্ধে আর যদি কোনো মামলা রানিং না থাকে, আপনাকে কি ফিউজিটিভ (পলাতক) বলা যাবে আজকে? আপনাকে কি বলা যাবে আপনি সাজাপ্রাপ্ত? কারণ যখন আপনি অব্যাহতি পেয়ে যান কোনো একটি চার্জ থেকে, পরের দিন থেকে আপনি একটা যে কোনো মুক্ত নাগরিকের মতো।

তিনি বলেন, আমার ভাইদের সম্পর্কে যে অপপ্রচারগুলো এসেছে, সেটির স্পষ্ট ব্যাখ্যা দেওয়া আছে এবং খুব শিগগির আমার পরিবারের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে একটা সংবাদ সম্মেলন করে সব কিছু জানানো হবে।

সেনাপ্রধান আজিজ আরও বলেন, আমি সেনাপ্রধান হিসেবে সেনাবাহিনীর ভাবমূর্তি, আমার অবস্থান, আমার দায়িত্ব সম্পর্কে সম্পূর্ণ সচেতন। কী করলে সেনাবাহিনীর ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন  হতে পারে, কী করলে আমার যে দায়িত্ববোধ আমাকে যে দায়িত্বটা দেওয়া হয়েছে, সেটি খর্ব হতে পারে, সে ব্যাপারে আমি সম্পূর্ণ ওয়াকিবহাল।

ভাইয়ের সঙ্গে মালয়েশিয়ায় সাক্ষাৎ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তখন তার নামে কোনো মামলা ছিল না। যে একটা ষড়যন্ত্রমূলক মামলা ছিল, সেটি থেকে অলরেডি অব্যাহতিপ্রাপ্ত ছিল। সে অব্যাহতি মার্চ মাসে হয়েছিল আর আমি এপ্রিল মাসে গিয়েছিলাম। এখানে আলজাজিরা যে স্টেটমেন্ট দিয়েছে, সেটি সম্পূর্ণ অসৎ উদ্দেশ্যে দিয়েছে। কারণ সেদিন আমার ভাইয়ের বিরুদ্ধে না কোনো সাজা ছিল, না তার বিরুদ্ধে

কোনো মামলা ছিল।  তার আগে তাদের বিরুদ্ধে যে মামলা ছিল, তা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছিল।

তার ভ্রমণের মুহুর্তে আলজাজিরা কীভাবে চিত্র ধারণ করল- এ বিষয়ে  জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমি সেনাপ্রধান হিসেবে মনে করি, যখন অফিসিয়াল ক্যাপাসিটিতে কোথাও থাকব, তখন আমার নিরাপত্তা অফিসিয়ালি করা হয়ে থাকে। যেখানে যাই হোস্ট কান্ট্রি করে থাকে এবং সেখানে আমার অতিরিক্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করার প্রয়োজন আছে বলে মনে করি।

এ বিষয়ে তিনি আরও বলেন, কিন্তু যখন আমি কোথাও ব্যক্তিগত সফরে থাকি, হয়তো আসার সময় ট্রানজিটে কোনো আত্মীয়স্বজনের কাছে যাই, সে সময় অফিসিয়াল কোনো প্রটোকল ব্যবহার করা কখনও সমীচীন মনে করি না। আমি মনে করি সেটি অপচয় এবং সেটি আমার জন্য উচিত নয়। সে ক্ষেত্রে সেই দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে কেউ যদি কিছু করে থাকে সেটি তাদের অসৎ উদ্দেশ্য।’

ঐ প্রতিবেদন তৈরিতে বাংলাদেশের যারা যুক্ত ছিলেন, তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে জেনারেল আজিজ বলেন, সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে তেমন কিছু হয়তো করার থাকবে না তাদের বিরুদ্ধে। আমি নিশ্চিত, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে যারা আছেন বা সংস্থায় যারা আছেন, তারা হয়তো তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন।

এ টি