Dhaka 11:34 pm, Tuesday, 16 April 2024

বুড়িগঙ্গার আদি চ্যানেলে নদীর জায়গায় থাকা ৭৪ স্থাপনা উচ্ছেদের নির্দেশ

  • Reporter Name
  • Update Time : 03:35:30 am, Friday, 19 March 2021
  • 296 Time View

 

এনবি নিউজ : ঢাকার হাজারীবাগ ও কামরাঙ্গীরচর এলাকায় বুড়িগঙ্গা ‘আদি চ্যানেল’ নদীর জায়গায় সিএস বা আরএস জরিপ অনুসারে চিহ্নিত ৭৪ স্থাপনা, মাটি ভরাট এবং দখল তিন মাসের মধ্যে উচ্ছেদ করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এক আবেদনের শুনানি নিয়ে ওই আদেশ দেন। ঢাকার জেলা প্রশাসক ও বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যানের প্রতি ওই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। উচ্ছেদ কাজে সহযোগিতা করতে পুলিশের মহাপরিদর্শক, র‍্যাবের মহাপরিচালক ও ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অরবিন্দু কুমার রায় ও পরিবেশ অধিদপ্তরের পক্ষে আইনজীবী আমাতুল করীম শুনানিতে ছিলেন।

ঢাকার আশপাশে থাকা বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, বালু ও শীতলক্ষ্যা—এ চার নদীর দূষণ, অবৈধ দখল ও নদীগুলোর ভেতরে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণের বৈধতা নিয়ে মানবাধিকার ও পরিবেশবাদী সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে ২০০৯ সালে হাইকোর্টে একটি রিট করা হয়। চূড়ান্ত শুনানি শেষে হাইকোর্ট কয়েক দফা নির্দেশনাসহ রায় দেন। রায়ে সময়সীমা বেঁধে দিয়ে সিএস ও আরএস ম্যাপ অনুসারে নদীগুলোর সীমানা জরিপ করা, প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন ঘোষণা, নদীগুলো রক্ষায় প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রণয়ন, সীমানা পিলার স্থাপন, নদী সীমানায় ওয়াকওয়ে নির্মাণ বা বৃক্ষরোপণ করতে বলা হয়।

এর ধারাবাহিকতায় হাজারীবাগ ও কামরাঙ্গীরচর বুড়িগঙ্গা এলাকায় আদি চ্যানেলের নদীর জায়গা উদ্ধার ও অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদে নির্দেশনা চেয়ে গত বছরের ৬ অক্টোবর এইচআরপিবি হাইকোর্টে আবেদন করে। এর শুনানি নিয়ে গত বছরের ১২ অক্টোবর হাইকোর্ট হাজারীবাগ ও কামরাঙ্গীরচর এলাকায় বুড়িগঙ্গা নদীর অংশে ‘আদি চ্যানেলে’ নদীর জায়গা সিএস/আরএস ম্যাপ অনুসারে তিন মাসের মধ্যে চিহ্নিত করতে নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে দখলকারীদের নাম–ঠিকানাসহ প্রতিবেদন হলফনামা আকারে ওই সময়ের মধ্যে আদালতে দাখিল করতে বলা হয়।

আইনজীবী মনজিল মোরসেদ এনবি নিউজকে বলেন, আদালতের নির্দেশ অনুসারে প্রতিবেদন জমা পড়ে। আদি চ্যানেল এলাকায় নদীর জায়গায় টিনশেড বাড়ি, চারতলা ভবন, একতলা ভবন, জায়গা দখল করে মাটি ভরাট, মসজিদের আংশিক স্থাপনাসহ ব্যক্তিমালিকানাধীন বাড়ি, হাসপাতাল, কারখানা ও সুপারমার্কেট রয়েছে। স্থাপনাসহ এসব তিন মাসের মধ্যে উচ্ছেদ করতে হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছেন। নির্দেশনা অনুসারে পদক্ষেপ নিয়ে আগামী ২৬ জুনের মধ্যে ঢাকার জেলা প্রশাসক ও বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যানকে আদালতে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

Popular Post

বুড়িগঙ্গার আদি চ্যানেলে নদীর জায়গায় থাকা ৭৪ স্থাপনা উচ্ছেদের নির্দেশ

Update Time : 03:35:30 am, Friday, 19 March 2021

 

এনবি নিউজ : ঢাকার হাজারীবাগ ও কামরাঙ্গীরচর এলাকায় বুড়িগঙ্গা ‘আদি চ্যানেল’ নদীর জায়গায় সিএস বা আরএস জরিপ অনুসারে চিহ্নিত ৭৪ স্থাপনা, মাটি ভরাট এবং দখল তিন মাসের মধ্যে উচ্ছেদ করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এক আবেদনের শুনানি নিয়ে ওই আদেশ দেন। ঢাকার জেলা প্রশাসক ও বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যানের প্রতি ওই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। উচ্ছেদ কাজে সহযোগিতা করতে পুলিশের মহাপরিদর্শক, র‍্যাবের মহাপরিচালক ও ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অরবিন্দু কুমার রায় ও পরিবেশ অধিদপ্তরের পক্ষে আইনজীবী আমাতুল করীম শুনানিতে ছিলেন।

ঢাকার আশপাশে থাকা বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, বালু ও শীতলক্ষ্যা—এ চার নদীর দূষণ, অবৈধ দখল ও নদীগুলোর ভেতরে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণের বৈধতা নিয়ে মানবাধিকার ও পরিবেশবাদী সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে ২০০৯ সালে হাইকোর্টে একটি রিট করা হয়। চূড়ান্ত শুনানি শেষে হাইকোর্ট কয়েক দফা নির্দেশনাসহ রায় দেন। রায়ে সময়সীমা বেঁধে দিয়ে সিএস ও আরএস ম্যাপ অনুসারে নদীগুলোর সীমানা জরিপ করা, প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন ঘোষণা, নদীগুলো রক্ষায় প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রণয়ন, সীমানা পিলার স্থাপন, নদী সীমানায় ওয়াকওয়ে নির্মাণ বা বৃক্ষরোপণ করতে বলা হয়।

এর ধারাবাহিকতায় হাজারীবাগ ও কামরাঙ্গীরচর বুড়িগঙ্গা এলাকায় আদি চ্যানেলের নদীর জায়গা উদ্ধার ও অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদে নির্দেশনা চেয়ে গত বছরের ৬ অক্টোবর এইচআরপিবি হাইকোর্টে আবেদন করে। এর শুনানি নিয়ে গত বছরের ১২ অক্টোবর হাইকোর্ট হাজারীবাগ ও কামরাঙ্গীরচর এলাকায় বুড়িগঙ্গা নদীর অংশে ‘আদি চ্যানেলে’ নদীর জায়গা সিএস/আরএস ম্যাপ অনুসারে তিন মাসের মধ্যে চিহ্নিত করতে নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে দখলকারীদের নাম–ঠিকানাসহ প্রতিবেদন হলফনামা আকারে ওই সময়ের মধ্যে আদালতে দাখিল করতে বলা হয়।

আইনজীবী মনজিল মোরসেদ এনবি নিউজকে বলেন, আদালতের নির্দেশ অনুসারে প্রতিবেদন জমা পড়ে। আদি চ্যানেল এলাকায় নদীর জায়গায় টিনশেড বাড়ি, চারতলা ভবন, একতলা ভবন, জায়গা দখল করে মাটি ভরাট, মসজিদের আংশিক স্থাপনাসহ ব্যক্তিমালিকানাধীন বাড়ি, হাসপাতাল, কারখানা ও সুপারমার্কেট রয়েছে। স্থাপনাসহ এসব তিন মাসের মধ্যে উচ্ছেদ করতে হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছেন। নির্দেশনা অনুসারে পদক্ষেপ নিয়ে আগামী ২৬ জুনের মধ্যে ঢাকার জেলা প্রশাসক ও বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যানকে আদালতে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।